জীবনের পরিভাষা একান্তে পথচলা.

12th October, 2023
339




একান্তে পথচলা....

অনেক সময় কিছু চিন্তা-চেতনা আমাদের মধ্যে ঘুরতে থাকে । কখনো হালকাভাবে- যখন অনুভব হয় কিন্তু সবকিছু সাধারণভাবে চলতে থাকে। আবার খুব বেশি অনুভব হয় কিছু সময়, যখন পরিস্থিতি সামলাতে গেলে হিতের বিপরীত হয়। তখন নিজেকে সেই পরিস্থিতিতে স্বাভাবিক রাখা খুব কষ্টকর হয়ে যায়। কিছু সময় নিজেকে আটকে রাখার চেয়ে সেই পরিস্থিতি থেকে আলাদাভাবে একান্তে সময় কাটানো উচিত । এই সময়টুকু একান্তে থাকলে অনেকটা কঠিন সময় নিজেকে আগলে বিষয়টার সহজ সমাধান বের করা যায়, যদিও একটু সময় লাগে। কখনো নিজেকে কোনো কিছুর জন্য আকৃষ্ট করো না। নিজেকে  ভালোবেসে, একান্তে নিজেকে ভালো রাখার চেষ্টা করো।

পৃথিবী অনেক সুন্দর - তখন তার থেকেও সুন্দর তোমার জীবন । নিজের প্রত্যেকটা বিষয় অন্যের মতো করে নয় , নিজের মতো করে তৈরি করবে তখন কারো প্রয়োজন তোমাকে অনুভব করাবে না। কিন্তু তোমার আশেপাশের প্রত্যেকটা মানুষ তোমার জন্য অনুভব করবে । প্রয়োজন মানুষকে অনুভব করায় , বাধ্য করে অনিচ্ছাকৃত কিছু সিদ্ধান্ত নিতে। সময়ের বিবর্তনে অনিচ্ছাকৃত সেই বিষয়টি একসময় কনভার্ট হয় অভ্যাসে । তখন বিষয়টার প্রতি ভালোলাগা খারাপলাগা অনুভব না হইলেও একটা দায়িত্ব কাজ করে যেটা ভিতর থেকে নিজেকে নতুন রুপ দেয়। যার পরিভাষা আকাশ সমান বিরাজ করে নিজের মধ্যে।

হয়তোবা এমন কিছু মুহূর্ত আসবে তোমার জীবনে যা তুমি না আটকাতে চাইলেও প্রকাশ করতে পারবা না। কারণ কিছু পরিস্থিতি আমাদের ভিতরে থাকলেও হাতে থাকে না। এইজন্য কখনো কোনো কিছু করার আগে সঠিকভাবে নিজের সিদ্ধান্ত নিতে শিখো। কারণ একবার ভুল সিদ্ধান্ত নিলে পরে তুমি যতই সফল হও না কেন, সেই ভুল সিদ্ধান্ত তোমাকে জীবনভর তারা করে বেড়াবে। সময় থাকতে- দেরী হোক, তাও সঠিকভাবে নিজের সিদ্ধান্ত নিতে শিখো। যাতে নিজের জন্য নিজেকে ভবিষ্যতে দোষ না দিতে হয়। 

কখনো কোন বিষয়ের প্রতি এতটাও চিন্তা করো না, যাতে সময়ের কাজগুলো পেছনে পড়ে যায়। কোনো কিছুর প্রতি অমনোযোগী মনোভাব যেমন তোমাকে পেছনে ফেলে দেবে। তেমনি কোন কিছুর প্রতি অতিরিক্তি মনোযোগ তোমাকে দুর্বল করে দেবে। আত্মত্যাগ নিজের জন্য ভালো আর সময়ের সাথে অপ্রয়োজনীয় জিনিস ত্যাগ জীবনের জন্য ভালো। কিছু জিনিস পিছনে ফিরে তাকাতে বাধ্য করলেও সময়ের সাথে এগিয়ে যাওয়া তোমার দায়িত্ব। জীবনে যত সমস্যাই আসুক না কেন সৃষ্টিকর্তার উপর  বিশ্বাস রেখে সময়ের সাথে সামনে এগোলে জীবনযাত্রা সুন্দর হয়।

প্রত্যেকটা বিষয়ের জন্য যেমন সময়  নিতে হয়। তেমনি কিছু বিষয়ের জন্য ধৈর্য রেখে একটু সময় দিতে হয়। তাড়াহুড়া করে কোনো সিদ্ধান্ত নিলে মাত্রাতিরিক্ত সমস্যা বাড়ে। সময়ের সাথে দেখতে দেখতে অনেক কিছু জীবনে আশে আবার চলে যায়, ঠিক প্রকৃতির ঋতু পরিবর্তনের মতো। প্রকৃতি ঠিকই নিজেকে সময়মতো বদলে নেয়। কিন্তু তুমি যদি পুরোনো কিছু আকড়ে বাঁচতে চেষ্টা করো তাহলে সয়ম তোমাকে পিছনের দিকে ফেলে নিজের মতো এগিয়ে যাবে। এইজন্য সময় থাকতে সময়ের মূল্য দিতে শেখো।

 

রিলেটেড পোস্ট


উপেক্ষাকৃত চিন্তার পরিপ্রেক্ষিতে সাময়িক মূল্যায়ন পর্যালোচনা-
পড়া হয়েছে: ৭১২ বার

মানসিক শান্তি বজায় রাখার সর্বোত্তম প্রক্রিয়া-
পড়া হয়েছে: ১৭২ বার

অর্জিত আস্থাই মানুষের মনে বিশ্বাস তৈরি করে-
পড়া হয়েছে: ২৭৬ বার

মানুষের অনুভবের ভিত্তিতে তার বিবেচনার গাঢ়ত্ব বাড়ে-
পড়া হয়েছে: ১৬৬ বার

মানবিক মূল্যবোধ মানুষের ভেতরের লক্ষণ নির্ধারণ করে থাকে-
পড়া হয়েছে: ৩৪০ বার

সময়ের সাথে বদলে যাওয়া মূহুর্তের অনুভব-
পড়া হয়েছে: ১৯৯ বার

নিজের প্রতি বিশ্বাসের আদ্রতা জীবনকে আলোকিত করে-
পড়া হয়েছে: ১২৫ বার

পরিস্থিতি কারোর প্রকৃতি নির্ধারণ করে থাকে-
পড়া হয়েছে: ১৮৫ বার

চলমান সময়ে নিঃস্বার্থ জীবন উপভোগের মুহুর্ত-
পড়া হয়েছে: ১৭২ বার

বিব্রতকর পরিস্থিতির অনাকাঙ্খিত চিন্তার প্রভাব-
পড়া হয়েছে: ১৭৬ বার


আরো নিবন্ধন পড়ুন



মানুষ তার অনুভবের উপর নির্ভর করে- Thursday, 02nd November, 2023

জীবনের ভারসাম্য বজায় রাখার চেষ্টাঃ

কখনো যদি মনে করো তোমার পরাজয় নিশ্চিত। আবার কখনো যদি দেখো সবকিছু তোমার ভিতরে চাপ সৃষ্টি করছে। কিন্তু তুমি কিছু বলার মতো অবস্থাতেও নাই। তখন চিন্তা করার কিছু নাই, শুধু নিজেকে আলগা রাখা ছাড়া। কারণ ওই মূহুর্তে তুমি যা কিছুই বলো বা করো না কেনো সবকিছু তোমার বিপরীতে থাকবে। এইজন্য পরিস্থিতি সামলাতে কখনো না পালিয়ে নিজেকে ভিতর থেকে শক্ত করে শুধু শান্ত রেখে যাও। তাহলে সেই পরিস্থিতির কোনো কিছুর প্রভাব তোমাকে গ্রাস করবে না।

চলতে গিয়ে না বুঝে হোঁচট খাওয়া স্বাভাবিক। কিন্তু হোঁচট খাওয়ার ভয়ে চলতে গিয়ে দ্বিধাবোধ করা অস্বাভাবিক। দ্বিধাবোধ মানুষের জীবনের করুন অবস্থা তৈরি করে। যা তাকে বিষন্নতার অন্ধকারে ভোগাতে থাকে। একবার ভয় পেয়ে দ্বিধাবোধের পরিস্থিতি থেকে বের হয়ে গেলেও, পরবর্তীতে এই বিষয়ের সাথে যুক্ত ছোট কিছুতেও পূর্বের ভয় নতুন করে তোমার মস্তিষ্ককে ভেতর দিয়ে এমনভাবে গ্রাস করবে। যা তোমার চিন্তা-ভাবনা থেকে শুরু করে ধীরে ধীরে সম্পূর্ণরূপে তোমাকে বদলে দেবে। যা প্রত্যেকের কাছে তোমার পরিচিত বদলে দেবে। অনুভব এমন একটা জিনিস যা মানুষকে যেকোনো পরিস্থিতি থেকে স্বাভাবিক হতে সহায়তা করে। এইজন্য তুমি যা কিছুই করো না কেনো আর যে পরিস্থিতিতেই থাকো না কেনো, সবসময় সঠিক বিবেচনায় আত্মবিশ্বাস বজায় রেখে নিজেকে পরিচালনা করার চেষ্টা করো। তাহলে তোমাকে কোনো ভোগান্তির শিকার হতে হবে না।

শেষের চিন্তা করলে বর্তমান হারিয়ে অতীতে পরিণত হতে থাকে। তাই কোনো কিছুর চিন্তা বাদ দিয়ে যেই সময়ের যা কিছু, সেই সময় সেই বিষয়টার পর্যালোচনা করা উচিত। তাহলে হয়তো যেকোনো কিছুর সর্বোচ্চ সাফল্য নিশ্চিত করা সম্ভব। কারণ কোনো কিছু করার পূর্বের চিন্তা একটুতে সীমাবদ্ধ থাকে না। সময় থেকে সময়ে ওই বিষয়ের জন্য পরিবর্তিত চিন্তা কাজ করতে থাকে অনেকের মধ্যে। যা তাকে ওই কাজের সময়ে পূর্বের থেকে এই পর্যন্ত নেওয়া সব সিদ্ধান্তের মধ্যে বিভ্রান্তিতে ভুল সিদ্ধান্ত নেওয়াবে। যা খুব বাজে ভাবে তাকে ভেতর থেকে চাপ অনুভব করাবে। তারপর থেকে হয়তো তার নিজের ওপর থেকে এমনভাবে বিশ্বাস উঠে যাবে, যে সিদ্ধান্ত নেওয়া দূরে থাক। কোনো কিছুর উপর বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়ে তার মেজাজ খিটখিটে হতে থাকবে। যা তার বিবেচনা শক্তি হারিয়ে একটা পশুর স্বভাবের রূপ দিতে থাকবে। এইজন্য আগে থেকে কোন কিছু চিন্তা না করে মন ভালো রেখে মাথা ঠান্ডা করে যখনের বিষয় তখনই সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত। তাহলে হয়তো আর খারাপ কোনো কিছুর সম্মুখীন হয়ে বিষন্নতায় ভুগতে হয় না কাউকে।

অনুভব শুনতে খুব হালকা লাগলেও। এর প্রভাব অনেক প্রখর। একেকটা বিষয়ের অনুভব একেক রকম। যেকোনো কিছুর অনুভবের ওপরই ওই বিষয়টার প্রতি তার একঘেয়েমি বা আকৃষ্টতা তৈরি হয়। যখন তুমি কোন কিছু ভেতর থেকে অনুভব করবা তখন তুমি সেই বিষয়টার প্রতি আকৃষ্ট হতে থাকবা। কিন্তু তার থেকে একটু ভালো কিছু তোমাকে ওই বিষয়টার প্রতি একঘেয়েমি তৈরি করে নতুন বিষয়ের প্রতি আকৃষ্ট করাবে। অনুভবের পরিবর্তন যেমন দ্রুত হয়। তেমনি কোন কিছুর প্রতি এর গাঢ়ত্ব তোমাকে সেই বিষয়টার প্রতি একবারই অনুভব করাবে। এরপর তার থেকে যত ভালো কিছুই তোমার সামনে আসুক না কেন। সেই বিষয়ের ওপর তোমার অনুভব অটুট থেকে যাবে। এই অনুভবের খারাপ দিক হলো- তোমাকে অপ্রকাশ্যে রাখবে সবকিছু ঠিক রাখতে। তাই অনুভব কর সবকিছুর প্রতি। কিন্তু অনুভবের গাঢ়ত্ব রাখো নিজের প্রতি। যা তোমাকে পেতে সাহায্য করবে হারাতে নয়।

মানুষের অনুভবের ওপরই তার কোনো বিষয়ের প্রতি সফলতা বা বিফলতা নির্ভরশীল। তাই আত্মবিশ্বাস বজায় রেখে সবকিছু অনুভব করে এগিয়ে গেলে যেকোনো বিষয়ের সফলতা নিশ্চিত।

পরিসমাপ্তির অন্তরালে- Thursday, 19th October, 2023

শেষের অগ্রিম সিদ্ধান্তঃ

একটা মানুষের চিন্তাশক্তি তাকে সময় থেকে সময়ে বিস্তারিত রূপ দিতে থাকে। তোমার চিন্তা-ভবনা তোমাকে প্রভাবিত করে তৈরি করে পরবর্তী মুহূর্তের জন্য। পরিস্থিতির জন্য অনেক সময় এর পরিবর্তনও হতে পারে। তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যায়, আমাদের জীবনে চিন্তাশক্তির প্রভাব।

তোমার জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জিনিস হলো সিদ্ধান্ত। বেশি চিন্তা করে কখনো সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়া যায় না। যেকোনো সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য নিজেকে সময় দেওয়া উচিত। তবে সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময় নিজেকে স্বাভাবিক রেখে বিবেক পর্যালোচনা করা উচিত। সিদ্ধান্ত এমন একটা জিনিস যা একবার নিয়ে নিলে পরবর্তীতে শত চেষ্টায়ও এর পরিবর্তন  অসম্ভব। কোনো সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করতে গেলে ওই পরিস্থিতি ঠিক হওয়ার জায়গায় নতুন সমস্যার উদ্ভব হতে থাকবে।

একটা মানুষের ভিতরের অনুভব থেকে তার পরিবর্তন হতে থাকে। অনুভব এমন একটা জিনিস যা মানুষকে যেমন ভালোলাগা অনুভব করায় তেমনি না পাওয়া বা হার থেকে অতিরিক্ত কষ্ট অনুভব করায়। যা আমাদের জীবনের ভাঙা গড়ার গল্প তৈরি করে। কোনো কিছুর পরিসমাপ্তির জন্য নিজেকে যত শক্ত করবা তত বেশি কষ্ট পাবা সময় থেকে। এইজন্য কোনো বিষয়ের জন্য নিজের দিক থেকে পরিসমাপ্তি টানতে হয় না। নিজেকে নিজের জন্য পরিবর্তন করে বিষয়টাকে সময়ের উপর ছেড়ে দিলে সবকিছু নিজের গতিতে এগিয়ে যায়।

কোনো কিছুর জন্য যখন তুমি নিজেকে সামলাতে ব্যর্থ হবা, সেই মুহূর্তে ওই পরিস্থিতি থেকে সামনে এগোনোর জন্য কোনো মাধ্যমের আশ্রয় নেওয়া উচিত না। ওই মাধ্যমের কারণে নিজের অজান্তেই একসময় তুমি তোমার অস্তিত্ব হারায় ফেলবা। তখন তোমার জীবনে, নিজেকে আর কোথাও খুঁজে পাবা না। এইজন্য যেকোনো পরিস্থিতিতে কোনো মাধ্যম ছাড়া নিজেকে নিজের মতো করে সামলাতে পারলে, তোমার জীবনে নিজের অস্তিত্ব বজায় রাখতে পারবা।

হারানোর ভয়ে পিছিয়ে গেলে আজীবন পিছনেই পড়ে থাকতে হয়। ফাঁকা মাঠে গোল দেওয়ার চিন্তা করলে জীবন থেকে প্রতিযোগিতা হারায় যায়। সবকিছুতেই হার-জিত থাকে, হারার ভয়ে যদি সবকিছু থেকে পেছোতে থাকো, তাহলে তুমি নিজের কাছে হেরে যাবা। যেকোনো পরিস্থিতিতে হারলে সেখানের অভিজ্ঞতা তোমাকে নতুন কিছুর জন্য তৈরি করবে, যার ফল ভবিষ্যতে পাবা। কিন্তু কোনো কিছুর জন্য নিজের কাছে হেরে গেলে বর্তমানকেই হারায় ফেলবা ভবিষ্যত তো দূরের কথা।

চিন্তা মানুষকে নতুন কিছু ভাবায়, মানবিকতা মানুষকে ভালোবেসে সম্মান করতে শেখায়। জীবনযুদ্ধে বিবেক পর্যালোচনা, মানুষকে পরিস্থিতির সম্মুখীন হয়ে সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়া শেখায়।

Asad ali Monday, 08th January, 2024
Asad Ali 
     30

শান্তিপূর্ণ সম্পর্ক-

 

সম্পর্কের সম্মানঃ

কোনো কিছুর শুরুতে সবকিছু ঠিক থাকে। আত্মিক অনুভব নিজের চারপাশে নতুন পরিবেশ সৃষ্টি করে। আশেপাশের সবকিছু নতুন আবহাওয়ায় নিজেকে নতুন করে সৃষ্টি করে। কিছুদিন পর এই সম্পর্কের প্রকৃতিটা আমাদের মধ্যে একঘেয়েমি সৃষ্টি করতে থাকে। কারণ আমরা মানুষ নতুনত্ব আমাদেরকে পরবর্তী মূহুর্তের প্রতি আকৃষ্ট করায়। ভালোলাগা এমন একটা জিনিস যেটা প্রতিটা মানুষের মধ্যে যেমন নতুনত্ব সৃষ্টি করে তেমনি তার চেয়ে একটু ভালো কিছু আমাদেরকে সেই পরিবেশের প্রতি অনিহা সৃষ্টি করায়।

বর্তমান পরিস্থিতিতে ভালোলাগার বিষয়টা Short Time Relationship এর মধ্যে পরে। কারণ ভালোলাগা শুধু আমাদের কোনো কিছুর প্রতি আকৃষ্ট করায়। কিন্তু সত্যিকারের ভালোবাসা আমাদের অপ্রকাশ্যে ত্যাগ করতে শেখায়। যারা সত্যিকার অর্থে কাউকে ভালোবাসে তাদের প্রথম পর্যায় খুব কঠিন থাকে। কারণ তারা অনুভব করে। কিন্তু কিসের জন্য অনুভব করে তার কোনো কারণ খুঁজে পায়না। যা তাদের প্রথম পর্যায়ে খুবই বিরক্ত অনুভব করায় যেকোনো কিছুর প্রতি। আস্তে আস্তে সে যখন তার আত্মিক অনুভবের মানুষটাকে খুঁজে পায়। তখন তাকে সে এতটাই সম্মানের পর্যায়ে রাখে যে, তার যেকোনো পরিস্থিতিতে তার ঢাল হয়ে থাকে। আর এর কারণেই সবসময় তাকে হারানোর ভয়ে নিরবতায় তার প্রতিরক্ষার্থী 

অনুভবের আর্তনাদের অন্তিম পর্যায়- Friday, 13th October, 2023

অনুভবের আর্তনাদঃ

কিছু জিনিসের প্রতি আমরা অনেক সময় প্রয়োজনের চেয়ে বেশি গুরুত্ব দেই। কিছু সময় সেই গুরুত্বটা নিজের জন্য অবশিষ্টভাবে কষ্টের ছাপ রেখে যায় জীবনে। যেটা সময়ের সাথে নিজের ভেতরের এমন একটা পরিবর্তন ঘটায় যা কারোর প্রতি নিজেকে শক্ত না করলেও, অন্যের প্রতি নিজেকে দুর্বল হতে দেয় না। জীবনের করা শত ভুল আমাদের পরবর্তী সময়ে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে সাহায্য করে। 

নিজের মতো করে সঠিকভাবে নিজের ব্যক্তিত্ব তৈরি করতে পারলে কখনো কারোর অপমান, অবহেলা নিজেকে কষ্ট দেয় না। কারণ সে জানে সেই ব্যক্তিই তাকে অপমান করবে যার বিবেচনা কম অন্যের থেকে পাওয়ার আশা রাখে বেশি। যখনই তাদের তুমি দিতে ব্যর্থ হবে তখন তুমি তাদের লুকায়িত আসল ব্যক্তির সাথে পরিচিত হবা। যার হদিস তোমার কাছে আগে থেকেই ছিলো। সময় থাকতে এমন ব্যক্তিগুলোর থেকে দূরে থাকতে পারলে নিজেকে খোলা আকাশের মাঝে ছেড়ে দিতে আর কোনো বাঁধা থাকে না।

নিজের ব্যক্তিত্বের সাথে অন্যের জন্য Compromise করলে আর কখনো নিজের ব্যক্তিত্ব পূর্বের মতো করে ফিরে পাওয়া সম্ভব হয় না। তুমি নিজের সাথে নিজেকে মানায় নিতে পারলে কারোর সাথে তোমার নিজেকে মানায় নেওয়ার প্রয়োজন হবে না। কারণ পরিস্থিতি যেমন সময়ের উপর নির্ভর করে তেমনি তোমার জীবনটা তোমার উপর নির্ভর করে। তুমি যখনই নিজের মতো করে অন্যের কাছে নিজেকে উপস্থাপন করতে পারবা। তখন যেকোনো কিছুর জন্য প্রত্যেকের কাছে তুমি সবার প্রথমে থাকবা।

কোনো কিছু পাওয়ার আশায় নয়, নিস্বার্থভাবে অন্যের পাশে থাকলে তোমার পাশে পুরো প্রকৃতি থাকবে। হয়তো একসময় তুমি যাদের পাশে নিস্বার্থভাবে থাকবা তারা তোমার প্রয়োজনে নিজেকে পৃথিবীর সবচেয়ে ব্যস্ত মানুষ হিসেবে নিজেকে তোমার সামনে উপস্থাপন করবে। কিন্তু প্রকৃতি সেই সময়ের সাক্ষী হিসেবে তোমাকে সাহায্য করে যাবে। কিন্তু তোমার সাহায্য পাওয়া সেই স্বার্থবাদী তার অজানা সীমিত সময়ের সাফল্য হারিয়ে ২য় বার তোমার সম্মুখীন হবে না। তার হেরে যাওয়া দেখেও ২য় বার তুমি তাকে সরাসরিভাবে সাহায্য করবে না। কারণ তুমি জানো প্রকৃতি থেকে যে শাস্তি পায় তার অবশিষ্টভাবে মানুষকে ব্যবহার করার মানুষিকতা কখনো বদলায় না।