Life সুন্দর

10th January, 2024
30




চুপ হয়ে যাও সবার থেকে সরে যাও ????৷ টাকা কামাও  মন চাইলে একলা বেরিয়ে পড়ো 
Life সুন্দর ????


আরো নিবন্ধন পড়ুন



বেলা শেষে- Saturday, 28th October, 2023

সৃষ্টির নতুন রূপঃ

যেকোনো কিছুর শুরু হয় অনুতাপ থেকে। তুমি যদি কোনো কিছু বুঝতে চাও, বিষয়টার সমাপ্তিতে নিজের ভুল থেকে অর্জিত অভিজ্ঞতাই তোমাকে শেখাবে। যেকোনো কিছুর পরিসমাপ্তি থেকে তোমার জীবনে নিজের পথচলা শুরু হবে। যেকোনো কিছুর প্রতি করা ছোট ছোট ভুল, অনুতাপ তোমাকে অনুভব করাবে বাস্তবতা। তোমার অনুভবের অভিজ্ঞতা জীবনভর তোমাকে মজবুত করে যাবে। যা কোনো কিছুর আকৃষ্টতা থেকে তোমাকে মুক্ত রাখবে।

শুরুর সময় থেকে সবকিছুই সাধারণ থাকে। আস্তে আস্তে যেকোনো কিছুর প্রতি অনুতাপের অনুভবই তোমার জীবনের নতুন রূপ ধারণ করাবে। নিজেকে বিশ্বাস করে ভরসা করতে শিখো। জগতের মায়া ত্যাগ করতে পারবা। নিজেকে নিঃস্বার্থ রেখে পথ চললে জটিল জীবনের সরলতা খুঁজে পাবা। কোনো কিছুই মায়া নয়, সবকিছুই মোহ যা আমাদের সীমিত সময়ের ভালোলাগার অনুভব থেকে নিজেকে সারাজীবনের একাকিত্বের অনুভব করায়। একান্তে নিজের মতো করে জীবন পরিচালনা করা যায়। কিন্তু একাকিত্বতা জীবনকে নিঃশেষে বিভাজ্য করে দেয়।

প্রিয়জনের থেকে প্রয়োজন তোমাকে উপরে উঠতে সাহায্য করবে। কারণ প্রিয়জন তোমার থেকে আশা রাখে, যা পূরণ করতে না পারলে তুমি তার সাথে চলার যোগ্যতা রাখো না। কিন্তু তুমি নিজের প্রয়োজনে অসম্ভবকেও সম্ভব করতে পারবা নিজের জন্য, যা তোমাকে স্বাধীন ভবিষ্যত গড়তে সাহায্য করবে। যেখানে কোন স্বার্থবাদী ব্যক্তির তোমার জীবনে হস্তক্ষেপ করার কোন অধিকার থাকবে না। হয়তো নিজের একান্তের পথচলায়ও অনেকের সাথে পরিচিতি রাখতে হবে সমাজে চলার জন্য। কিন্তু দিনশেষে তুমি শান্তিপূর্ণ সফল জীবনের অধিকারী।

জীবনের জন্য যখন তুমি আশা না রেখে পরিবারের ভরসায় নিজেকে তৈরি করবা। তখন তোমার জীবনে সবচেয়ে কঠিন সিদ্ধান্তগুলো নিজের বিবেচনায় নিতে শিখে যাবা। কোনো কিছুর পথ চেয়ে থাকার চাইতে, সামনের সময়ের সাথে নিজেকে এগোনো ভালো। কেননা জীবন একটা বাঁধাযুক্ত ফাঁকা রাস্তার মতো। যেখানে বাঁধা পেরোনোর অলসতায় বসে থাকার চাইতে, যেকোনো কিছুর সম্মুখীন হয়ে মোকাবেলা করে এগিয়ে যাওয়া ভালো। হেরে গেলেও সবকিছু সামলে নতুন রাস্তায় নিজেকে পরিচালনা করতে পারবা বাঁধার অভিজ্ঞতা থেকে। তাই অলসতায় বসে থেকে নয়, নিজ পায়ে দাঁড়িয়ে চলতে শেখো।

তাড়াহুড়ার মূহুর্তে নিজেকে সামলাতে শেখো, অল্প সময়ে সবকিছুর সমাপ্তি পাবা। প্রকৃতির মায়ায় জীবনের মোহ ত্যাগ করলে শেষের পূর্ণতা পাবা।

অন্ধকারের মধ্যে ভেঙে যাওয়া জীবনগুলো পুনরুদ্ধার করার শক্তি আছে- Tuesday, 14th November, 2023

অন্ধকারের শক্তিঃ

কখনো যদি কেউ মনে করে তার জীবনের প্রত্যেকটা মূহুর্ত বিষন্নতায় জড়িয়ে গেছে। সেই মূহুর্ত থেকে বেড়োনোর চেষ্টা করলে জীবনে অতিরিক্ত সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে। তখন ভরসা হিসেবে অন্ধকারই কারোর জীবনের আলো ফিরিয়ে নিয়ে আসবে সময়ের সাথে। যা কারেরা জীবনের উজ্জ্বলতা বাড়িয়ে তার স্থায়িত্ব নিশ্চিত করবে। অন্ধকারের নীরবতায় কেউ নিজের অস্তিত্ব খুঁজে পায় নতুন করে। যার স্থায়ীত্ব তাকে কোন কিছুর জন্য আর পিছনে ফিরে তাকাতে দেয় না। যার কারনে সামনের পথগুলোতে হোঁচট খাওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়। কেউ সবসময় মাথানিচু করে চললে সে দুর্বল নয়। হয়তো সে কারোর সম্মুখীন করতে চায় না নিজেকে। তাই যারা উপর থেকে দেখতে সরল। তারা ভিতর থেকে ততটাই মজবুত হয়।

কেউ যখন চাওয়ার চেয়ে বেশি পায়। তখন বিষয়গুলো সামলানো কারোর জন্য একটু কষ্টকর হয়ে পরে। যার কারনে অতিরিক্ততাও মাঝে মাঝে কাউকে বিরক্তি অনুভব করায়, বিষয়টা ভালো হোক বা খারাপ। নিজেকে অনেক সময় ছেড়ে দেওয়া উচিত, জীবনের ভার কমাতে। নাহলে তার ভিতরের বদ্ধতা হয়তো তাকে একসময় অনুভূতিহীন করে দেয়। তাই সবকিছুর মধ্যে নিজের চাপ কমানোর চেষ্টা করা উচিত। অনেকেই তার জীবনের দায়-দায়িত্বগুলো ভুলে যায় সামনের দিনগুলোতে। যা একটা সময়ের পর পেছনের মানুষগুলোর প্রতিদানের কথা মনে করিয়ে নিজেকে অসীম দায় অনুভব করায়। যা কাউকে জীবিত  অবস্থায় মৃতপ্রায় করে রাখে। দায়-দায়িত্ব এমন একটা জিনিস যা এড়িয়ে গেলে জীবনে চূড়ান্ত পর্যায়ে হলেও এর ভোগান্তির শিকার হতে হয়।

অন্ধকার মানুষকে নীরবে গভীরভাবে নিজেকে অনুভব করায়। যা তাকে সরলতার মাঝে মজবুত করে রাখে। একটা মানুষ তার ভেতরের সবচেয়ে বড় শক্তিও অনুভব করতে পারে অন্ধকারে। যা তার মধ্যে একটা নতুন পৃথিবী তৈরি করে। যেখানে সে তার ব্যক্তিত্ব আর চিন্তাধারায় পারিপার্শ্বিকতা বজায় রাখতে সক্ষম হয়। মানুষ একতাবদ্ধভাবে বসবাস করে সমাজে। আবার মানুষের বিভেদও তৈরি হয় সমাজ থেকে। যা জাত তৈরির মাধ্যমে একে অপরের মধ্যে দুরত্ব বাড়ায়। একটা মানুষের জাত নির্ধারণ করে, সে সমাজে কার সাথে সম্পর্ক বজায় রাখতে পারে প্রতিবেশী হিসেবে। কিন্তু যারা একটু উপরে উঠে জাতের অজুহাতে নিজেদেরকে বড় মনে করে। তারা কখনো কি এইটা ভেবে দেখে না যে, মৃত্যুর পরে সবাই মাটির সাথে মিশে নিঃশেষে বিভাজ্য হয়ে যাবে। আর তার মৃত্যুর কিছুদিন পরে হয়তো তার অস্তিত্বও মুছে যাবে পৃথিবী থেকে।

বিভেদ শুধু সমাজে না। প্রত্যেকটা ক্ষেত্রেই বিভেদ বহুল ব্যবহৃত হয়। সমাজ শুধু উদাহরণস্বরূপ প্রকাশ্যের মাধ্যম মাত্র। যা কাউকে অনেক কিছু বুঝিয়ে জীবনে পথচলা শেখায়। একটা মানুষের কল্পনাশক্তি তাকে যেকোনো কিছু বিভিন্নভাবে অনুধাবন শেখায়। যা কারোর একক জীবনে তাকে অসীম জীবন অনুভব করায়। কল্পনাশক্তির ইতিবাচকতা কাউকে জীবনের জ্ঞানার্জন করায়। আর নেতিবাচকতায় কেউ আবর্জনার চেয়েও অতিরিক্ত নোংরা মানসিকতার হয়। যা তাকে উপর থেকে যেভাবেই রাখুক না কেনো। তার আচরণ আর চরিত্রেই এর আসল প্রভাব সময়ের সাথে ব্যাক্ত করে। এইজন্য সবসময় কল্পনাশক্তিকে পরিষ্কার রাখা উচিত। সুন্দর চরিত্র বজায় রাখার জন্য।

জীবনের জন্য কৃত্রিম আলোর চেয়ে প্রকৃতির অন্ধকার ভালো। যা তোমার ভিতরের ভয় দূর করে প্রত্যেকটা বিষয়ের সত্যতা প্রকাশ করবে। কোনো কিছুর জন্য নিজেকে আটকে রাখার চেয়ে মুক্ত বাতাসের অনুভব করা ভালো। যা তোমার ভিতরের দম বন্ধ হওয়ার জায়গায় প্রাণ খুলে বাঁচতে শেখাবে।

প্রদত্ত সংবিধান নিয়ন্ত্রণে সামান্য পরিবর্তন শ্রেয়- Sunday, 11th February, 2024

সংবেদনশীল সময়ের প্রভাবঃ

মেনে নেওয়া; মানায় নেওয়ার চেয়েও শান্তিপূর্ণ সিদ্ধান্ত। প্রত্যেকটা ব্যক্তিই সাধারণভাবে মুক্ত বাতাসে শান্তির নিঃশ্বাস ফেলতে চায়। কিন্তু সময় আর পরিস্থিতি সবসময় মানুষকে আলাদাভাবে ভাবতে শেখায়। যার কারনে কিছু ক্ষেত্রে না চাইতেও কাউকে মানায় নিতে হয়। কিন্তু কিছুটা সময় আমরা নিজের জন্য বরাদ্দ করতে পারি। যাতে মানায় নেওয়া বিষয়গুলো নিজের জন্য মেনে নিতে সুবিধা হয়। কারণ সবকিছু বলার মাঝে সহজ। কিন্তু পরিচালনার ক্ষেত্রে আসল বাঁধার সম্মুখীন হতে হয়। তাই হয়তো নিজের জন্য হলেও প্রত্যেকটা বিষয়ের সংবেদনশীলতা বজায় রেখে সময় নিয়ে পর্যবেক্ষণ করা উচিত। যাতে শেষের মাঝেও কোনো কিছু সংশোধন করা যায়।

চারপাশে ঘুরতে থাকা সিদ্ধান্তের সাধারণ সূত্র হলো- সব বিষয়ের সাথে জড়িয়ে থাকা সামান্য অনুতাপ। যা হয়তো সবসময় বোঝা যায় না। কিন্তু বিষয়গুলোর কথা চিন্তা করলে অনুভব করা সম্ভব। তাছাড়াও যেকোনো বিষয়ের শুরু থেকে সমাপ্ত হওয়া অবধি কারোর মধ্যে সামান্য পরিবর্তন হয়। যা ধরা ছোঁয়ার বাইরে। কিন্তু এইভাবেই সবকিছু বাড়তে এবং পরিবর্তন হতে থাকে। তাই সবকিছুর মাঝে লুকিয়ে থাকা সামান্য কিছু বিষয় বিবেচনা করলে কারোর মূল জিনিসটা বুঝতে বেশি সময় লাগে না। ভালোলাগা খারাপলাগা সবার মাঝেই থাকে। কিন্তু সময়ের সাথে নিজের নির্ধারিত অল্প বিষয়ের সামান্য পরিবর্তন আনতে পারলে; যেকোনো কিছু থেকে এগিয়ে যাওয়া সহজ।

সংকোচবোধ কাউকে অস্বস্তি অনুভব করায়। তখন কেউ নিজেকে গুঁটিয়ে নিতে বাধ্য হয়। যেজন্য এমন কোনো পরিস্থিতিতে প্রবেশ করা উচিত না। আবার এমন পরিস্থিতির উদ্ভাবকও হওয়া উচিত না। যাতে অন্য কাউকে নিজের মতো বিব্রতকর পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে না হয়। কারণ কারোর মাধ্যমে প্রত্যেকে যেই মূল্যমান পাবে। সেই মোতাবেক কেউ পুরো সমাজে মূল্যায়িত হবে। ভালোভাবে ভালো থাকার জন্য সামান্য ত্যাগ কাউকে মহৎ করবে। কিন্তু অনুতাপের অনুভব নিজের মধ্যে রাখলে কেউ স্বাধীন জীবনের অধিকারী হবে। তাই নিজের জন্য নিজের স্বাধীনতা তৈরি করে বাঁচতে জানলে; সমস্ত কঠিনের মাঝেও নিজেকে সহজ মনে হবে।

কাউকে বোঝানো ভালো। তবে সন্তুষ্টিপূর্ণ মনোভাবে। ছেড়ে যাওয়া সহজ; ধরে রাখা কঠিন। তবে কেউ যেকোনো কিছু নিয়ন্ত্রণে একান্তের মনোভাব পোষণ করতে পারলে; পুরো পরিস্থিতির সম্রাট সেই ব্যক্তি।