❤️সেই থেকে শুরু প্রেম উপাখ্যান........................

08th January, 2024
39




নীলা, কেমন আছ তুমি?

- এইতো আছি। তুমি কেমন আছো?

কি বলি বলতো, ভালো আছি বলি, না ভালো নেই বলব ভেবে পাচ্ছি না।

ধরে নেও ভালো আছি। তবে.......

- তবে কি?

না কিছু না।

- একটুও বদলাও নি, এমনিতে তো বেশী কথা বলো কিন্তু এখন চুপ কেনো?

বলো... উত্তর দাও.... নিলয় চুপ করে থেকোনা প্লিজ।

কি বলবো?

- কি বলবো মানে, ধরে নেবো ভালো আছো তবে......! তবে কি? আমি সেটাই জানতে চাই। কি হয়েছে তোমার?

কি আর হবে? না পাওয়ার যন্ত্রনা আমার ভিতরটা আঘাতে আঘাতে রক্তাত্ত ক্ষত-বিক্ষত করছে প্রতি মুহুর্তে।- এই, এমন কি চেয়েছিলে, যা তুমি পাওনি। যার জন্য আজ তোমার এ অবস্থা?

আমি বলতে পারবো না।

- আজ আমি তোমার কোনো কথাই শোনবো না। আজ তোমাকে বলতে হবে। বল সেটা কি ছিলো?

- তোমার ভালোবাসা। আমি তোমাকে খুব বেশি ভালোবাসি। বিশ্বাস কর, ৩টা বছর একটি রাত ও আমি ঘুমাতে পারিনি। সারারাত শুধু তোমার কথাই ভাবতাম, জানো বিশ্ববিদ্যালয়ে তোমাকে প্রথম তোমাকে দেখলাম। সেদিন থেকেই আমি তোমার প্রেমে পড়ে যাই। বিশ্বাস করো আমি তোমাকে খুব বেশী ভালোবাসি। এক মুহুর্ত তোমাকে ভুলে থাকতে পারি না। তোমাকে ছাড়া........ (মনের ভিতরে জমে থাকা সব কথা ঝর্না ধারার মতো বলে যাছে নিলয়, নীলা নির্বাক দৃষ্টিতে থাকিয়ে আছে আর কাঁদছে।)হঠাৎ খেয়াল করলো নিলয় নীলা কাঁদছে।

নীলা, কি হয়েছে তোমার কাঁদছো কেনো?

- পাষাণ্ড, তুই এতটা পাষাণ? তোর মনটা কি পাথরে গড়া?

৩ বছর, প্রায় প্রতিদিন দেখা হতো, কত কথা বলতে আর আমায় ভালোবাসিস সেটা বলতে পারলে না?

কেনো বলিস নি এতোদিন?

নিলয়ের মুখে কোনো কথা নেই, বোবার মতো দাঁড়িয়ে আছে। নীলাও চুপ হয়ে গেলো। দুজনেই নিরব।বেশ কিছুক্ষন কেটে গেলো এভাবে।

নিরবতা ভেঙ্গে দিয়ে নীলা ডাকলো নিলয়কে, শান্ত স্বরে বললো আমার দিকে থাকাও। নিলয় চোখ তোলে থাকাতেই নিলয় লাভ ইউ, লাভ ইউ বলে জড়িয়ে ধরলো। নিলয়ও লাভ উ খুব শক্ত করে জড়িয়ে নীলাকে।সেই থেকে শুরু তাদের প্রেম উপাখ্যান....... 


আরো নিবন্ধন পড়ুন



‌শিশুর যত্ন Thursday, 23rd November, 2023
প্রায়ই দেখি, কারো ছোট্ট বাচ্চাকে কেউ কোলে নিয়ে চুমাচুমি শুরু করে দেয়, যেটা এক ধরনের বিশ্রী রকমের অভদ্রতা। হতে পারে, চুমু দেয়া মানুষটি মুখের হাইজিন ঠিকমত মেইনটেইন করেন না, অথবা বাইরে থেকে এসে মুখটুখ না পরিষ্কার করেননি অথবা পান বিড়ি সিগারেট খান। যা থেকে বাচ্চার জন্য হতে পারে নিদারুণ ক্ষতি। আবার চুমু দিতে না দিলেও মনে হয় না জানি কি পাপ করে ফেললেন। শিশুর এমনিতেই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম থাকে, এর মধ্যে এইসব হলে তার দায়ভার কি তিনি নিবেন?? না বাবা/মা পারবে তাকে ব্লেম করতে, না তিনি নিজে ব্লেম নিবেন। ভালো হয়, এইসকল চুম্মাওয়ালা মানুষের কোলেই বাচ্চাকে না দেয়া। কোলে দেয়া পর্যন্ত মেনে নেয়া গেলেও, বাকিটা নয়। সেটা বাচ্চাকে কোলে দেয়ার সময়ই তাকে বলে দেয়াটাও বাবা/মা এর দায়িত্বের মধ্যে পড়ে। শিশুদের যত্ন নিন ভালো থাকুন..
সমাপ্তির পথচলা- Wednesday, 18th October, 2023

অসমাপ্ত আত্মকথাঃ

ভুল থেকে শুরুর পথচলা অস্বাভাবিক নয়। তোমার জীবনে পূর্ণতা আনে পিছনের করা ভুলগুলো। কারোর কাছ থেকে সবসময় পরামর্শ নিয়ে পথচলা একরকম। আর তুমি নিজের মতো করে পথ চললে সেইটা আরেক রকম। তোমার কিছু না থাকতে একা পথচলা একরকম আর সবকিছু থেকেও সেখান থেকে সাহায্য না নেওয়া অস্বাভাবিক। না পাওয়া থেকে শেখা যায়। কিন্তু সবকিছু থাকা সত্ত্বেও সেগুলোর সঠিক ব্যবহার না করলে সেটা তোমার ভুল। মানুষ যেকোনোভাবে নিজের জীবনের পর্যালোচনা করতে পারে। তার কিছু থাকুক আর না থাকুক। সেখানে শুধু শেখার মাধ্যমটা আলাদা হবে।

কখনো কারোর জীবন থেকে নিজের জীবন পর্যালোচনা করার চেষ্টা করবে না। প্রত্যেকের জীবন তার নিজের মতো। সময়ের সাথে একেক জন একেকভাবে বদলায়। কারণ প্রত্যেকের পরিবার ভিন্ন হয়। প্রত্যেকেরই তার পরিবারের মতো করে সঠিক বিবেচনায় নিজের ব্যক্তিত্ব তৈরি করে জীবনের পর্যালোচনা করা উচিত। কারণ ব্যক্তিত্বের নকল করা যায় না। কারোর ভালো দিক থেকে শেখা যায়। কিন্তু ব্যক্তিত্ব নিজের মতো করে তৈরি করতে হয়। পরিবার তোমাকে সঠিক পথে চলতে শেখাবে। পরিস্থিতি বুঝে তোমার নিজেকে  পরিচালনা করতে হবে।

নিজের কাছে নিজেকে সহজ করলে কোনো কিছুই কঠিন নয়। জীবনের পদক্ষেপগুলো সয়য়ের সাথে ধরন বদলাবে। কিন্তু নিজেকে নিজের মতো রেখে সময়ের সাথে এগোতে হবে। সবকিছু তখনই অনেক কঠিন যখন তুমি নিজের চেয়ে অন্য কিছুর বেশি গুরুত্ব দিবা। তখন চাইলেই সবকিছু ছেড়ে দেওয়া যায়। কিন্তু নিজেকে সহজে বদলানো যায় না। নিজেকে সঠিকভাবে তৈরি করতে পারলে, নতুনত্ব আমাদের মধ্যে কিছুসময় থাকবে। কিন্তু মনুষ্যত্ববোধ আমাদের মধ্যে আজীবন  থাকবে। কেউ কারোর কথায় কষ্ট পায় না। প্রত্যেকেই বিপরীত ব্যক্তির আচরণে কষ্ট পায়।

কাউকে কষ্ট দেওয়া সহজ। কিন্তু তাকে বুঝে তার যেকোনো পরিস্থিতিতে তার পাশে থাকা কঠিন। কারণ এটা সীমিত সময়ের পথচলা নয়, একটা দায়িত্ব। যা সবসময় থেকে যায় জীবনের একটা অংশবিশেষ হিসেবে। সমস্যার অভাব নাই, কিন্তু সমাধান প্রত্যেকটা বিষয়েরই আছে। শুধু বিষয়টাকে বুঝে সমাধান নিজের করে নিতে হবে। কঠিন একটা শব্দ। কিন্তু এটাকে আকার ধারণ করাই আমরা। জীবনের কোনো কিছুই বোঝার না, সবকিছুই প্রয়োগের বিষয়। মাঝে মাঝে আমরা নিজেদের জীবনের ক্ষেত্রে ছোট কঠিন শব্দের বড় প্রয়োগ করে ফেলি। যার কারনে সহজ কাজ করতে গেলেও ভুল হতেই থাকে। ভুলগুলোকে পর্যবেক্ষণ করে পরবর্তীতে যেকোনো কাজ প্রয়োজনের তুলনায় নিখুঁতভাবে করা সম্ভব।

জীবন সীমিত সময়ের হলেও অনেক বিবেচনা করে প্রত্যেকটা মুহূর্তের সম্মুখীন হতে হয়। সহজ সবকিছুই যখন তুমি প্রত্যেকটা বিষয়ের সাথে নিজেকে খাপ খাওয়াতে পারবা।

#প্রস্তুতি Saturday, 06th January, 2024
জীবনটি একটি অদৃশ্য যাত্রা, এবং এই যাত্রায় আমাদের সাহস, উদ্দীপনা, এবং পরিশ্রমের সাথে এগিয়ে যাওয়া দরকার। আমরা সবাই কিছুটা কাজ করতে চাই, কিছুটা অর্জন করতে চাই, এবং আমাদের জীবনের এই ছোট পান্ডুলিপির মধ্যে বড় কিছু হতে চাই। কিন্তু পথের সাথে সাথে সমস্যাও আসে, এবং তা হলো একটি স্বাভাবিক অংশ। সমস্যা আসলে মৌলে দেখতে হয়, এবং তার সমাধানের দিকে মুখ করতে হয়। একটি সমস্যা একটি সুযোগ, একটি পরীক্ষা যা আমাদের ক্ষমতা এবং ইচ্ছাশক্তি চেক করতে সাহায্য করে। সবাইকে মনে রাখতে হবে যে, "যে কোনও লক্ষ্য অর্জন করা সহজ নয়, কিন্তু সহজ লক্ষ্য প্রাপ্ত করা হতে যেটি বড় হয়, সেটি অসম্ভব নয়।" সবাই চারপাশে সৃষ্টি করা সীমার বাইরে যাওয়ার জন্য তৈরি আছি, কিন্তু সে হতে আবশ্যক হবে আমাদের সাহস এবং প্রস্তুতি। তাই, হৃদয়ে ধরে নিন আপনার স্বপ্ন, এবং সম্ভাবনার দিকে পৌঁছানোর জন্য প্রতিশ্রম করুন। জীবনটি একটি অসীম সাগর, এবং আপনি হচ্ছেন এই সাগরের অনুভূতি। কাজ করুন, উৎসাহিত থাকুন, এবং যেকোনো চুনৌতিতে মুখোমুখি হোন। আপনি সক্ষম, এবং সবাই আপনার সাথে। ???????? #মোটিভেশন #জীবনেরসফলতা #প্রস্তুতি"
হামাসের হামলায় ৯ আমেরিকান নিহত Thursday, 12th October, 2023

গত শনিবার ফিলিস্তিনি সশ্বস্ত্র গোষ্ঠি হামাসের রকেট হামলায় ইসরায়েলে নিহত ৮০০ ছাড়িয়েছে। নিহতের মধ্যে অন্তত ৯ জন আমেরিকার নাগরিক আছেন বলে জানিয়েছে  মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। নিহতের এই সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে শঙ্কা প্রকাশ করেছে দেশটি। 

সোমবার আমেরিকার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ম্যাথিউ মিলার বলেন, ‘ওই অঞ্চলে হামাসের হামলায় আমাদের দেশের ৯ জন মারা গেছেন। এই তথ্য আমরা পেয়েছি। কোনো আমেরিকানকে জিম্মি করা হয়েছে কিনা, সেটিও দেখা হচ্ছে।’

মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন বলছে, হামাসের হামলায় ইসরায়েলে নিহতের সংখ্যা ৮০০ ছাড়িয়েছে। পাল্টা হামলায় নিহত হয়েছে ৫১০ ফিলিস্তিনি। দুই দেশের মোট ৫ হাজার মানুষ আহত হয়েছে। আল জাজিরা বলছে, গাজা থেকে বাস্তুচ্যুত হয়েছেন ১ লাখ ২০ হাজার বাসিন্দা। এখনো সংঘাত চলছে।

হামাসের হামলায় ৯ জন আমেরিকান ছাড়াও নেপালের ১০ জন ও থাইল্যান্ডের ১২ জন মারা গেছেন।  

আল জাজিরা বলছে, হামাসের হামলার জবাবে এবার রিফিউজি ক্যাম্পেও হামলা শুরু করেছে ইসরায়েলের সামরিক বাহিনী। বিমান হামলা থেকে রক্ষা পেতে এদিক–সেদিক ছুটছে সবাই। তবে তাদের যাওয়ার কোনো জায়গা নেই।

ফিলিস্তিনি গোষ্ঠী হামাস ও ইসরায়েলের মধ্যে চলমান সংঘাতে তৃতীয় পক্ষে যে কোনো সময় ঢুকে পড়তে পারে, এমন 'ঝুঁকি’ রয়েছে বলে জানিয়েছে রাশিয়া।