_অহংকার

08th January, 2024
53




_অহংকার করি না...!???? “কারণ”

_ আমি মাটির তৈরি মানুষ_???? _সময়.হলে,আবার..!_ওই মাটিতেই মিশে যাবো…!_︵ ????????


আরো নিবন্ধন পড়ুন



জীবনের পরিভাষা একান্তে পথচলা. Thursday, 12th October, 2023

একান্তে পথচলা....

অনেক সময় কিছু চিন্তা-চেতনা আমাদের মধ্যে ঘুরতে থাকে । কখনো হালকাভাবে- যখন অনুভব হয় কিন্তু সবকিছু সাধারণভাবে চলতে থাকে। আবার খুব বেশি অনুভব হয় কিছু সময়, যখন পরিস্থিতি সামলাতে গেলে হিতের বিপরীত হয়। তখন নিজেকে সেই পরিস্থিতিতে স্বাভাবিক রাখা খুব কষ্টকর হয়ে যায়। কিছু সময় নিজেকে আটকে রাখার চেয়ে সেই পরিস্থিতি থেকে আলাদাভাবে একান্তে সময় কাটানো উচিত । এই সময়টুকু একান্তে থাকলে অনেকটা কঠিন সময় নিজেকে আগলে বিষয়টার সহজ সমাধান বের করা যায়, যদিও একটু সময় লাগে। কখনো নিজেকে কোনো কিছুর জন্য আকৃষ্ট করো না। নিজেকে  ভালোবেসে, একান্তে নিজেকে ভালো রাখার চেষ্টা করো।

পৃথিবী অনেক সুন্দর - তখন তার থেকেও সুন্দর তোমার জীবন । নিজের প্রত্যেকটা বিষয় অন্যের মতো করে নয় , নিজের মতো করে তৈরি করবে তখন কারো প্রয়োজন তোমাকে অনুভব করাবে না। কিন্তু তোমার আশেপাশের প্রত্যেকটা মানুষ তোমার জন্য অনুভব করবে । প্রয়োজন মানুষকে অনুভব করায় , বাধ্য করে অনিচ্ছাকৃত কিছু সিদ্ধান্ত নিতে। সময়ের বিবর্তনে অনিচ্ছাকৃত সেই বিষয়টি একসময় কনভার্ট হয় অভ্যাসে । তখন বিষয়টার প্রতি ভালোলাগা খারাপলাগা অনুভব না হইলেও একটা দায়িত্ব কাজ করে যেটা ভিতর থেকে নিজেকে নতুন রুপ দেয়। যার পরিভাষা আকাশ সমান বিরাজ করে নিজের মধ্যে।

হয়তোবা এমন কিছু মুহূর্ত আসবে তোমার জীবনে যা তুমি না আটকাতে চাইলেও প্রকাশ করতে পারবা না। কারণ কিছু পরিস্থিতি আমাদের ভিতরে থাকলেও হাতে থাকে না। এইজন্য কখনো কোনো কিছু করার আগে সঠিকভাবে নিজের সিদ্ধান্ত নিতে শিখো। কারণ একবার ভুল সিদ্ধান্ত নিলে পরে তুমি যতই সফল হও না কেন, সেই ভুল সিদ্ধান্ত তোমাকে জীবনভর তারা করে বেড়াবে। সময় থাকতে- দেরী হোক, তাও সঠিকভাবে নিজের সিদ্ধান্ত নিতে শিখো। যাতে নিজের জন্য নিজেকে ভবিষ্যতে দোষ না দিতে হয়। 

কখনো কোন বিষয়ের প্রতি এতটাও চিন্তা করো না, যাতে সময়ের কাজগুলো পেছনে পড়ে যায়। কোনো কিছুর প্রতি অমনোযোগী মনোভাব যেমন তোমাকে পেছনে ফেলে দেবে। তেমনি কোন কিছুর প্রতি অতিরিক্তি মনোযোগ তোমাকে দুর্বল করে দেবে। আত্মত্যাগ নিজের জন্য ভালো আর সময়ের সাথে অপ্রয়োজনীয় জিনিস ত্যাগ জীবনের জন্য ভালো। কিছু জিনিস পিছনে ফিরে তাকাতে বাধ্য করলেও সময়ের সাথে এগিয়ে যাওয়া তোমার দায়িত্ব। জীবনে যত সমস্যাই আসুক না কেন সৃষ্টিকর্তার উপর  বিশ্বাস রেখে সময়ের সাথে সামনে এগোলে জীবনযাত্রা সুন্দর হয়।

প্রত্যেকটা বিষয়ের জন্য যেমন সময়  নিতে হয়। তেমনি কিছু বিষয়ের জন্য ধৈর্য রেখে একটু সময় দিতে হয়। তাড়াহুড়া করে কোনো সিদ্ধান্ত নিলে মাত্রাতিরিক্ত সমস্যা বাড়ে। সময়ের সাথে দেখতে দেখতে অনেক কিছু জীবনে আশে আবার চলে যায়, ঠিক প্রকৃতির ঋতু পরিবর্তনের মতো। প্রকৃতি ঠিকই নিজেকে সময়মতো বদলে নেয়। কিন্তু তুমি যদি পুরোনো কিছু আকড়ে বাঁচতে চেষ্টা করো তাহলে সয়ম তোমাকে পিছনের দিকে ফেলে নিজের মতো এগিয়ে যাবে। এইজন্য সময় থাকতে সময়ের মূল্য দিতে শেখো।

 

মানুষ তার অনুভবের উপর নির্ভর করে- Thursday, 02nd November, 2023

জীবনের ভারসাম্য বজায় রাখার চেষ্টাঃ

কখনো যদি মনে করো তোমার পরাজয় নিশ্চিত। আবার কখনো যদি দেখো সবকিছু তোমার ভিতরে চাপ সৃষ্টি করছে। কিন্তু তুমি কিছু বলার মতো অবস্থাতেও নাই। তখন চিন্তা করার কিছু নাই, শুধু নিজেকে আলগা রাখা ছাড়া। কারণ ওই মূহুর্তে তুমি যা কিছুই বলো বা করো না কেনো সবকিছু তোমার বিপরীতে থাকবে। এইজন্য পরিস্থিতি সামলাতে কখনো না পালিয়ে নিজেকে ভিতর থেকে শক্ত করে শুধু শান্ত রেখে যাও। তাহলে সেই পরিস্থিতির কোনো কিছুর প্রভাব তোমাকে গ্রাস করবে না।

চলতে গিয়ে না বুঝে হোঁচট খাওয়া স্বাভাবিক। কিন্তু হোঁচট খাওয়ার ভয়ে চলতে গিয়ে দ্বিধাবোধ করা অস্বাভাবিক। দ্বিধাবোধ মানুষের জীবনের করুন অবস্থা তৈরি করে। যা তাকে বিষন্নতার অন্ধকারে ভোগাতে থাকে। একবার ভয় পেয়ে দ্বিধাবোধের পরিস্থিতি থেকে বের হয়ে গেলেও, পরবর্তীতে এই বিষয়ের সাথে যুক্ত ছোট কিছুতেও পূর্বের ভয় নতুন করে তোমার মস্তিষ্ককে ভেতর দিয়ে এমনভাবে গ্রাস করবে। যা তোমার চিন্তা-ভাবনা থেকে শুরু করে ধীরে ধীরে সম্পূর্ণরূপে তোমাকে বদলে দেবে। যা প্রত্যেকের কাছে তোমার পরিচিত বদলে দেবে। অনুভব এমন একটা জিনিস যা মানুষকে যেকোনো পরিস্থিতি থেকে স্বাভাবিক হতে সহায়তা করে। এইজন্য তুমি যা কিছুই করো না কেনো আর যে পরিস্থিতিতেই থাকো না কেনো, সবসময় সঠিক বিবেচনায় আত্মবিশ্বাস বজায় রেখে নিজেকে পরিচালনা করার চেষ্টা করো। তাহলে তোমাকে কোনো ভোগান্তির শিকার হতে হবে না।

শেষের চিন্তা করলে বর্তমান হারিয়ে অতীতে পরিণত হতে থাকে। তাই কোনো কিছুর চিন্তা বাদ দিয়ে যেই সময়ের যা কিছু, সেই সময় সেই বিষয়টার পর্যালোচনা করা উচিত। তাহলে হয়তো যেকোনো কিছুর সর্বোচ্চ সাফল্য নিশ্চিত করা সম্ভব। কারণ কোনো কিছু করার পূর্বের চিন্তা একটুতে সীমাবদ্ধ থাকে না। সময় থেকে সময়ে ওই বিষয়ের জন্য পরিবর্তিত চিন্তা কাজ করতে থাকে অনেকের মধ্যে। যা তাকে ওই কাজের সময়ে পূর্বের থেকে এই পর্যন্ত নেওয়া সব সিদ্ধান্তের মধ্যে বিভ্রান্তিতে ভুল সিদ্ধান্ত নেওয়াবে। যা খুব বাজে ভাবে তাকে ভেতর থেকে চাপ অনুভব করাবে। তারপর থেকে হয়তো তার নিজের ওপর থেকে এমনভাবে বিশ্বাস উঠে যাবে, যে সিদ্ধান্ত নেওয়া দূরে থাক। কোনো কিছুর উপর বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়ে তার মেজাজ খিটখিটে হতে থাকবে। যা তার বিবেচনা শক্তি হারিয়ে একটা পশুর স্বভাবের রূপ দিতে থাকবে। এইজন্য আগে থেকে কোন কিছু চিন্তা না করে মন ভালো রেখে মাথা ঠান্ডা করে যখনের বিষয় তখনই সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত। তাহলে হয়তো আর খারাপ কোনো কিছুর সম্মুখীন হয়ে বিষন্নতায় ভুগতে হয় না কাউকে।

অনুভব শুনতে খুব হালকা লাগলেও। এর প্রভাব অনেক প্রখর। একেকটা বিষয়ের অনুভব একেক রকম। যেকোনো কিছুর অনুভবের ওপরই ওই বিষয়টার প্রতি তার একঘেয়েমি বা আকৃষ্টতা তৈরি হয়। যখন তুমি কোন কিছু ভেতর থেকে অনুভব করবা তখন তুমি সেই বিষয়টার প্রতি আকৃষ্ট হতে থাকবা। কিন্তু তার থেকে একটু ভালো কিছু তোমাকে ওই বিষয়টার প্রতি একঘেয়েমি তৈরি করে নতুন বিষয়ের প্রতি আকৃষ্ট করাবে। অনুভবের পরিবর্তন যেমন দ্রুত হয়। তেমনি কোন কিছুর প্রতি এর গাঢ়ত্ব তোমাকে সেই বিষয়টার প্রতি একবারই অনুভব করাবে। এরপর তার থেকে যত ভালো কিছুই তোমার সামনে আসুক না কেন। সেই বিষয়ের ওপর তোমার অনুভব অটুট থেকে যাবে। এই অনুভবের খারাপ দিক হলো- তোমাকে অপ্রকাশ্যে রাখবে সবকিছু ঠিক রাখতে। তাই অনুভব কর সবকিছুর প্রতি। কিন্তু অনুভবের গাঢ়ত্ব রাখো নিজের প্রতি। যা তোমাকে পেতে সাহায্য করবে হারাতে নয়।

মানুষের অনুভবের ওপরই তার কোনো বিষয়ের প্রতি সফলতা বা বিফলতা নির্ভরশীল। তাই আত্মবিশ্বাস বজায় রেখে সবকিছু অনুভব করে এগিয়ে গেলে যেকোনো বিষয়ের সফলতা নিশ্চিত।